বিদেশে উচ্চ শিক্ষা বিষয়ক ওয়েবিনার

বিদেশে উচ্চ শিক্ষা বিষয়ক ওয়েবিনার

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স ক্লাব ১৯ জুলাই সোমবার ভারচুয়াল প্লাটফর্ম জুম অ্যাপের মাধ্যমে বিদেশে উচ্চ শিক্ষা বিষয়ক একটি ওয়েবিনার এর আয়োজন করে।

 

Advertisements

অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তা হিসেবে ছিলেন অলোক কুমার পাল। তিনি বলেন, এমন একটি ওয়েবিনার ক্লাবের এবং ক্লাবের বাইরের সবার জন্য খুব উপকার হবে। একজন শিক্ষার্থী যখন অন্য দেশে পড়তে যায় তারা তখন সে দেশে বাংলাদেশকে রিপ্রেজেন্ট করে। উনি আরো বলেন এভাবে ভালো ভালো প্রোগ্রাম করার মাধ্যমে সায়েন্স ক্লাব অনেক দুর এগিয়ে যাবে এই আশাবাদ করেছেন।

 

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ড. মো.সুলতান উল ইসলাম,উপ- উপাচার্য , রাবি। মাননীয় ভিসি তার বক্তব্যে বলেন, অনেক স্টুডেন্ট ইচ্ছে এবং সামর্থ্য থাকা সত্বেও বাইরে দেশে উচ্চ শিক্ষার জন্য যেতে পারেন না সঠিক গাইডলাইনের অভাবে। যারা অলরেডি বাইরে পড়াশোনা করছেন তারা বিগেনারদের সাহায্য করবেন এই আশা ব্যক্ত করেছেন।

 

উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের উপদেষ্টা মন্ডলী,প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি জহুরুল ইসলাম মুন, স্থায়ী ও আজীবন সদস্য সহ অন্যান্য সদস্যগণ । এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ২৮০ জনের ও অধিক শিক্ষাথী গন।

 

অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জহুরুল ইসলাম মুন, পিএইচডি ফেলো, ফ্যাকাল্টি অফ ফার্মাসি,
উনিভার্সিটি অফ লিসবন, পর্তুগাল।তিনি বলেন রিসার্চ ও পাবলিকেশন থাকলে পিএইচডি জন্য স্কলারশিপ পাওয়া সহজ। এছাড়াও তিনি ইউনিভার্সিটি স্কলারশিপ ও এম্বাসি স্কলারশিপ পেতে হলে কি কি স্টেপ ফলো করতে হবে।সে বিষয়ে সম্যখ আলোচনা করেন।চৌধুরী আরিফ জাহাঙ্গীর
পিএইচডি স্টুডেন্ট, উনিভার্সিটি কলেজ
ডাবলিন, আয়ারল্যান্ড।

 

তিনি বলেন উচ্চ শিক্ষার জন্য যতো দ্রুত প্রস্তুতি গ্রহন করা যায়,ততোই ভালো। এছাড়াও তিনি একজন শিক্ষার্থী বাহিরেত দেশে যাওয়ার পর কি কি সমস্যার সম্মুখীন হয় সেসব বিষয়ে আলোচনা করেছেন। সাদিয়া মনজুর পিএইচডি স্টুডেন্ট ওকায়ামা ইউনিভার্সিটি জাপান। তিনি মোটিভেশানাল লেটার নিয়ে সম্যক ধারনা দিয়েছেন পাশা পাশি পড়াশোনা শেষে ক্যারিয়ার অপর্চুনিটি নিয়ে আলোচনা করেছেন।

 

সালেক আহমেদ সজীব মাস্টার প্লান্ট সায়েন্সেস ইউনিভার্সিটি প্যারিস স্যাকলাই, ফ্রান্স।তিনি উচ্চ শিক্ষার জন্য সিজিপিএ, আই ই এল টি এস,জি আর ই,টোফেল,জিম্যাট, ব্যাংক স্টেটমেন্ট এগুলোর গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করেন।তিনি এক্সট্রা কালিকুলাম এক্টিভিটিস এর উপর জোরদার করেন।তিনি বলেন এসব এক্টিভিস শিক্ষার্থীর ভেল্যু তৈরি করে স্কলারশিপ পেতে সহায়তা করে। সাদিয়া আফরিন সেতু মাস্টার্স স্টুডেন্ট,  ওটোভাস,লরেন্ড ইউনিভার্সিটি,হাংগেরি। তিনি ভাইভা তে কিভাবে পার্ফরম্যান্স করতে হবে এবং ইউনিভার্সিটি সিলেকশনের ক্ষেত্রে কি কি বিষয় লক্ষ্য করা উচিত সে বিষয়ে ধারনা দেন।

 

আমাদের অনেকেরই ইচ্ছা,উচ্চশিক্ষার জন্য দেশের বাইরে পড়তে যাওয়া।সেইটা হতে পারে আন্ডার গ্রাজুয়েশন, পোস্ট গ্রাজুয়েশন কিংবা ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জনের জন্য।দেশের বাইরে পড়তে যাওয়ার ক্ষেত্রে আমরা অনেকেই সিদ্বান্তহীনতায় ভুগে থাকি।কারণ বিষয় টি আমাদের কাছে যথেষ্ট নতুন এবং আমরা সেরকম দক্ষ মেন্টর ও পাই না,যারা আমাদেরকে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবেন।যার ফলে আমরা মিসকন্সেপশনে ভুগে থাকি এবং এই কারণে উলটোপালটা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি।যারা বিদেশে থেকে পড়াশুনা করেছেন, তারা সাধারণ মানুষের চেয়ে কয়েক গুণ বেশি স্বাধীনচেতা, আত্মনির্ভরশীল, বুদ্ধিমত্তা ও সৃজনশীল ক্ষমতার দিক থেকে অনেক এগিয়ে।
Youth opportunities ওয়েবসাইটে বিশ্বের কোথায় কোন প্রতিযোগিতা হচ্ছে, কোথায় ভলান্টিয়ার লাগবে, কোন কোন প্রতিষ্ঠানে পেইড ইন্টার্ন নিচ্ছে এমনকি স্কলারশিপের খোঁজ-খবরও দেওয়া হয়। আমরা চাইলেই কোন কোন দেশে স্কলারশিপ দেওয়া হচ্ছে সে সম্পর্কে জানতে পারি।

 

সমগ্র অনুষ্ঠানের শেষে ৭ম কার্যনির্বাহী পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন প্রতিষ্ঠাকালীন উপদেষ্টা প্রফেসর তারিকুল হাসান, রসায়ন বিভাগ, রাবি। নতুন কমিটির সকলকে তিনি অভিন্দন জানান এবং সায়েন্স ক্লাবকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।
সমগ্র অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন মো: ইশতেহার আলী। সঞ্চালনা করেন আবিদ হাসান, সাধারন সম্পাদক ও মারিয়া মেহা প্রমি, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক রাবি সায়েন্স ক্লাব।