প্রাইভেট মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলোর জন্যে খসড়া মন্ত্রিসভায়

প্রাইভেট মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলোর জন্যে খসড়া মন্ত্রিসভায়

মন্ত্রিসভা গতকাল বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও ডেন্টাল কলেজ আইন, ২০২১ এর খসড়াকে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে বেসরকারী মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলিকে দুটি পৃথক নির্দেশিকা থেকে আইনের আওতায় আনার মাধ্যমে শৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সাপ্তাহিক মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়। গনো ভবন থেকে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় কার্যত প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের বেসরকারী মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলি বর্তমানে বেসরকারী মেডিকেল কলেজ স্থাপনা এবং অপারেশন গাইডলাইনস ২০১১ এবং বেসরকারী ডেন্টাল কলেজ প্রতিষ্ঠা ও অপারেশন গাইডলাইনস ২০০৯ এর অধীনে পরিচালিত হয়।

Advertisements

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ের সময় মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, একটি মেডিকেল বা ডেন্টাল কলেজের কমপক্ষে ৫০ জন শিক্ষার্থী থাকতে হবে এবং প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী এর শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনুপাত 1:10 হতে হবে।

তিনি বলেন, একটি মেডিকেল কলেজের যে কোনও মহানগরীতে কমপক্ষে দুই একর জমি থাকতে হবে এবং ডেন্টাল কলেজের জমির প্রয়োজন এক একর।

আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, যে কোনও মহানগরীর বাইরে একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপনের জন্য জমির প্রয়োজন চার একর এবং এটি একটি ডেন্টাল কলেজের জন্য দুই একর।

একটি মেডিকেল কলেজের জন্য যে কোনও বাণিজ্যিক ব্যাংকে তিন কোটি টাকা এবং যে কোনও ডেন্টাল কলেজের জন্য দুই কোটি টাকা রিজার্ভ তহবিল হিসাবে জমা করতে হবে।

প্রস্তাবিত আইন বলছে যে কোনও মেডিকেল কলেজের একাডেমিক প্রয়োজনে এক লক্ষ বর্গফুট জায়গা এবং হাসপাতালের প্রয়োজনে আরও এক লাখ বর্গফুট জায়গা থাকতে হবে। একটি ডেন্টাল কলেজের জন্য, হাসপাতালের স্থানটি প্রতি 50,000 বর্গফুট হতে হবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সময়ে সময়ে এ জাতীয় কলেজ ও হাসপাতাল পরিদর্শন করবেন।

তিনি আরও বলেন, মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলি যে কোনও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যুক্ত হতে হবে। আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সরকার মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলির একাডেমিক ফি নির্ধারণ করবে। পাশাপাশি তিনি বলেন, বেসরকারী মেডিকেল কলেজ বা ডেন্টাল কলেজ কর্তৃপক্ষকে তাদের বর্জ্যগুলি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে নিষ্পত্তি করতে হবে।

আইন লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেছেন, সর্বোচ্চ শাস্তি দুই বছরের কারাদণ্ড বা দশ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডে হবে। বর্তমানে দেশে প্রায় ৭০ টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ এবং ২৬ টি বেসরকারি ডেন্টাল কলেজ রয়েছে। মন্ত্রিসভা টেরিটোরিয়াল ওয়াটারস অ্যান্ড মেরিটাইম জোনস (সংশোধন) আইন, ২০২১ এর খসড়াটিকে আরও বেশি সময়সাপেক্ষ করার জন্য চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ১৯৭৪ সালে প্রণীত পুরাতন আইনটি পরিবর্তিত পরিস্থিতির মধ্যে সংশোধন করতে হবে। ১৯৭৬ ও ১৯৮৬ সালে সামরিক শাসনামলে যে দুটি অধ্যাদেশ জারি করা হয়েছিল তা বাতিল করার জন্য বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ আইন, ২০২১ নীতিগতভাবে মন্ত্রিসভাও অনুমোদন দিয়েছে।

এমন একটি কর্পোরেশন থাকবে যার জন্য অনুমোদিত মূলধন হবে 5000 কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন 200 কোটি টাকা। কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান থাকবেন। প্রস্তাবিত আইন অনুসারে, এটিও একটি সংস্থা গঠন করতে পারে।

আঁধার আলো অনলাইন/এএমডি

Source link