পুরানো সেই দিনের কথা

পুরোনো সেই দিনের কথা

আমরা দুই জনে রাতের জোসনার আলোয় মাঠের এক কিনারে বসে গল্প করতে করতে আকাশের ঝিলমিল করা তারা গুনবো, ঝিঝি পোঁকার ডাক শুনবো , না হয় বহমান বাতাসে দুজনে কান পেতে দিবো । এই কথা ভাবতে ভাবতে পুরানো সেই দিনের কথা গুলো মনে পড়ে গেলো।

তারা গোনা শেষে দুই জনে মিষ্টি ঝগড়ায় মেতে উঠবো, আমি বলবো আমি তোমার থেকে বেশি গুনেছি তুমি বলবে নাহ আমি।

Advertisements

ঝগড়া করতে করতে কখন যে দু জনের চোখে চোখ পড়ে হারিয়ে যাবো স্বপ্নের দুনিয়ায় টেরই পাবো না । হঠাৎ ঝিঝি পোঁকার শব্দে আমাদের নয়নে নয়নে কথার অবসান হবে । চেয়ে দেখবো  চারিদিক নিস্তব্ধতায় ভরে গেছে , নেই কোনো কোলাহল, নেই যন্ত্রচালিত গাড়ির হর্ণের তিক্ত শব্দ । চাঁদের আলো তোমার মুখে এসে খেলা করছে , ইস কি মায়াবী লাগছে তোমার মুখটা । আমি যেনো চোখ সরাতেই পারছি না ।

তুমি হঠাৎ বলে বসবে, ” এই কি হলো তোমার , এমন ভাবে দেখছো কেনো” । আমি তোমার মুখ থেকে আলতো করে চুল সরিয়ে দিয়ে বলবো, ”মায়াবী মুখে কেশম কালো চুলটা যেনো এক চাঁদের ন্যায় সৌন্দর্য দর্শন থেকে বিতাড়িত করছিল আমাকে ”।

তোমার ঐ মায়া আখি দুটি ঝলমল করবে তারার টিপটিপ আলোয় । যদি অনুমতি দাও,  নিরবতায় একে অপরের সুখ দুঃখের কথা শুনবো, আমাদের সঙ্গ দিবে রাতজাগা পাখির দল । বেশ তো, মনোমালিন্য ঝগড়াটা না হয় অন্য একদিন করবো , পূর্ণিমার রাতে । কেনই বা বললাম পূর্ণিমার রাতের কথা?…..

সে রাতে চারিদিক ভোরের আলোর মতো হয়ে উন্মোচিত হয় , জোসনার আলো খেলা করে মাটিতে, মাঠে ঘাসের আড়ালে আড়ালে । ঝগড়া করতে করতে যখন তুমি রাগ করে চলে যাইতে চাইবে, আমি বাঁধাই দিবো না । আমি জানি, তোমার মন উতালপাতাল করবে, তুমি মাঠের এপাশ থেকে ওপাশে যেতে যেতেই তোমার রাগ ফুরিয়ে যাবে , উড়ে যাবে ঝলমলে আকাশে, ফিরে আসবে আবার , আর ঝাপছা ঝাপছা আলোয় আমি চেয়ে চেয়ে দেখবো তোমার আঁকাবাঁকা চলা । আমার বিষন্ন ভাবটা থাকবে না ,  কেন জানো?…..

তোমার ঐ কমল পায়ের তালুতে কাঁটা ফোঁটার কোনো ভয় থাকবে না যে আমার , শুধুই ঝুমুরের আওয়াজটা কান পেতে শুনবো আমি, ফেলফেল করে তাকিয়ে থাকবো তোমার দিকে । আমি তখনো মাঠের মাঝখানে বসে থাকবো তোমার ফিরে আসার অপেক্ষায় । যদি নাই আসো ফিরে, পার করো মাঠের গন্ডি, আমি দৌঁড়ে যেয়ে ধরবো তোমার হাত যদি রাগটি নাহি করো । বলবো তোমায়, এত রাগ কেনো করো সখী , রাগ থামিয়ে হাতটা যদি ধরো ।